Have a question? We Are Here to Help

হিজামা কি ও কিভাবে করা হয়?

Hijama Planet > Blog > Uncategorized > হিজামা কি ও কিভাবে করা হয়?

হিজামা কি ও কিভাবে করা হয়?

হিজামা শব্দটি আরবি হাজামা বা হাজ্জামা ক্রিয়া থেকে এসেছে যার অর্থ হচ্ছে কমিয়ে ফেলা, আসল আকারে ফিরিয়ে নেয়া, বা আকারে ছোট করে ফেলা ইত্যাদি।
আরবিতে তারা বলে যে এক লোক সমস্যাটা ছোট করে ফেলেছে- এর অর্থ হচ্ছে “সে সমস্যাটা আগে অবস্থায় ফিরিয়ে নিয়ে গেছে।”
আরও একটা ভার্ব বা ক্রিয়া আছে “আহজামা” যার মানে যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পিছিয়ে আসা বা অস্ত্র সংবরণ করা।
তার মানে, যে হিজামা করে (অর্থাৎ হাজ্জাম) সে রোগকে বাধা দেয় বা সংবরণ করে রোগীকে আক্রান্ত করা থেকে।
আমাদের শরীরে প্রতিনিয়ত মেটাবলিক বাই-প্রোডাক্ট তৈরি হচ্ছে। রোগ-জীবাণুর আক্রমণে বা ব্যাবহার এর কারণে বিভিন্ন রক্তকণিকা ও টিস্যুর ক্ষতিসাধন হচ্ছে। মানুষের বয়স যত বাড়তে থাকে মানুষের শরীরের বিভিন্ন স্থানে মাসল ও টিস্যুর মধ্যে এই মেটাবলিক বাই প্রোডাক্ট ট্র্যাপ হচ্ছে। এর একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ হচ্ছে আমরা যদি জোরে হাটতে বা দৌড়াতে থাকি তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই আমাদের পায়ে ব্যাথা শুরু হয়ে যায়। এর কারন হচ্ছে মেটাবলিক বাইপ্রোডাক্ট আমাদের মাসলে জমা হয়ে নার্ভ এন্ডিং গুলোর পেইন রিসেপ্টরে স্টিমুলেশান দেয়। আবার কিছুক্ষণ রেস্ট নিলে এই পেইন কমে যায়, কারন বাই প্রোডাক্টগুলোকে ব্লাড ফ্লো করে ডাইলিউট করে দেয় এবং কিডনি বা লিভার বা
ঘর্মগ্রন্থি তাদের নিজস্ব প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এগুলোকে পুনরায় ব্যাবহার্য্য করে অথবা সেটা সম্ভব না হলে শরীর থেকে বের করে দেয়।
আমাদের শরীরে ছোট ছোট রক্তনালী (ক্যাপিলারি ও ভেনিউলস) ও নার্ভ (নিউরন) জালিকার মত বিছিয়ে রয়েছে। বিভিন্ন জীবাণুর আক্রমণে বা বিভিন্ন শরীরবৃত্ত্বীয় প্রকৃয়ায় আমাদের রক্তকণিকা ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এগুলো অনেক ক্ষেত্রেই এইসব ছোট ছোট রক্তনালীতে ট্র্যাপ হয়ে পড়ে এবং রক্ত প্রবাহে বাঁধার সৃষ্টি করে।

হিজামা কিভাবে করা হয়?

প্রথমে যার ওপর হিজামা প্রয়োগ করা হবে, তার রোগের বর্ণনা শুনে শরীরের বিভিন্ন পয়েন্টে হিজামা করার স্থান নির্বাচন করা হয়।

হিজামার বেসিক পয়েন্টস ম্যাপিং
হিজামা থেরাপিস্টদের সুবিধার্থে। হিজামার পয়েন্ট গুলোর প্রপার এ্যানাটমিকাল পজিশানিং নিচে দেয়া হল।

মাথা ও ঘাড়ের হিজামা পয়েন্টগুলোর এ্যানাটমিক্যাল পজিশনিং
এরপর পেশেন্টের চামড়ার ঐ স্থান গুলো ডিসইনফেক্ট করে কাপ বসানো হয়। কাপ বসানোর পূর্বে তেল লাগিয়ে নিলে স্কিনে স্ট্রেস কম পড়বে। ডিসপোজেবল কাপ ব্যাবহার করা বাধ্যতামূলক। অথবা গ্লাস, সিরামিক বা মেটালিক কাপ স্টেরিলাইজ করে ব্যাবহার করতে পারেন।
কাপ লাগানর সাথে সাথে নেগেটিভ প্রেশারের কারণে কাপের নিম্নস্থিত টিস্যু ফুলে ওঠে। এখানে হাইপারমিয়া হয়, অর্থাৎ এখানের রক্তনালীগুলো সম্প্রসারিত হয়ে ওঠে ফলে আশপাশ থেকে রক্ত কাপের নিচে এসে জমা হয়।
কয়েক মিনিট এভাবে অপেক্ষা করার পরে কাপ খুলে ফেলা হয়। তারপর স্টেরাইল (জীবাণুমুক্ত) ও ধারাল ব্লেড দিয়ে ছোট ছোট আচড় দেয়া হয়। এই সুক্ষ্ম আচড়ের ফলে রক্ত বের হবে না, রক্তের হালকা বিন্দু দেখা যেতে পারে।
অনেকে সুঁই দিয়ে হিজামা করতে পছন্দ করেন। কিন্তু সুঁই দিয়ে ব্যাথা বেশি পাওয়া যায়, ভাল ভাবে রক্ত বের হয় না, আর নাইট্রিক অক্সাইড রিলিজের পরিমাণও কম হয়।
এরপর কাপ বসিয়ে ভ্যাকিউয়াম করা হলে রক্ত বের হওয়া শুরু হয়। প্রায় ১০ থেকে ১৫ মিনিট রক্ত বের হয়।
রক্ত বের হওয়ার পরিমাণ এক এক পেশেন্টের ক্ষেত্রে এক এক শারীরিক কন্ডিশানে এক এক রকম হতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় কারও কয়েক ফোটা বের হয়েছে, আবার কারও কাপ ভরে গেছে। রক্ত বেশি বের হলে যে হিজামার ইফেক্ট বেশি পাওয়া যাবে তা কিন্তু নয়। হাদিসে এসেছে হিজামা কাটার মধ্যে শেফা।
স্ক্র্যাচ করার পর প্রথমবার কাপ বসিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট অপেক্ষা করে কাপ খুলে রক্ত মুছে ফেলতে হবে।
এরপর আবার কাপ বসিয়ে পরীক্ষা করতে হবে যে রক্ত আর বের হয় কিনা। যতক্ষণ রক্ত বের হবে ততক্ষণ কাপ বসিয়ে রাখতে হবে।
রক্ত বের হওয়া বন্ধ হলে রক্তরস (Serum) বের হবে যা দেখতে সাদাটে বা হলদাভ পানির মত।
অভিজ্ঞ হিজামা থেরাপিস্ট এর আচড় কা কাটা হবে খুবই সূক্ষ্ম। পেশেন্ট প্রায় কোন ব্যাথাই পাবে না। একটু কড়া সুড়সুড়ির মত অনুভূতি হবে শুধু।
আর এই হিজামার আচর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হিলিং হয়ে যাবে। দুই দিনের মধ্যে অনেকটা নিচের ছবির মত দেখাবে।
হিজামাকে খুব সহজ মনে করে আনপ্রফেশনাল লোকদের দ্বারা হিজামা করাবেন না, এতে করে ক্ষতি হতে পারে। নীচের ছবির মত হিজামার কাটের কারণে ইনফেকশান হতে পারে ও, পারমানেন্ট স্কার মার্ক থেকে যেতে পারে।
এছাড়াও তৈরি হতে পারে ব্লিস্টার, যা আপনাকে অনেকদিন ভোগাবে।
হিজামা করার জন্য ডাক্তার হওয়ার প্রয়োজন নেই। ঠিক যেমন ফিজিওথেরাপি সেবা দেয়ার জন্য ফিজিওথেরাপিস্ট হলেই চলে ডাক্তার হওয়ার প্রয়োজন নেই। কিন্তু এর মানে এই নয় যে, যে কেউ হিজামা করতে পারবে। ডাক্তাররা আরও অনেক জটিল ধরনের কাজ করেন। তবে ডাক্তাররা হিজামা শিখলে ইফেক্টিভভাবে ট্রিটমেন্ট প্ল্যান তৈরি করতে পারবেন, যা অন্যরা পারবে না।
সার্টিফাইড মেডিকেল পার্সনদের দ্বারা হিজামা করাতে চাইলে আমাদের ব্রাঞ্চগুলোতে ফোন দিনঃ
+88.0161.2877464 (Dhanmondi)
+88.01610.445262 (Banani)
+88.01841.445262 (Chittagong)
+88.01615.445262 (Khulna)
+88.01842.787924 (Jhalokati, Barisal)
+88.0184.2877464 (Bogra)
+1(716)495-4435 (Buffalo, New York, USA)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *